২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ বৃহস্পতিবার || ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

 

আরএএস পদ্ধতিতে শহরেও বাণিজ্যিকভাবে মাছ চাষ (ভিডিও)

শহরে শখের বসে অনেকেই মাছ চাষ করেন অ্যাকোরিয়ামে । কিন্তু বাণিজ্যিকভাবেও যে শহরে মাছ চাষ করে উপার্জন করা যায় তা কি কখনো ভেবেছেন? প্রচলিত মাছ চাষ পদ্ধতির চেয়ে দশগুণ বেশি ঘনত্বে মাছ চাষ করায় শহুরে চাষিদের কাছেও জনপ্রিয় হয়ে উঠছে আরএএস পদ্ধতি। মাত্র ১ লাখ ২০ হাজার লিটার পানিতে বছরে ২৪ টন মাছ উৎপাদন সম্ভব এ পদ্ধতিতে।

গ্রামে পুকুর-দিঘি কিংবা খালে মাছ চাষ পুরনো পদ্ধতি। কিন্তু ইট কাঠের এই নগরীর মাছ চাষে প্রায় অসম্ভব। তবে স্বল্প জায়গায় রিসার্কুলেটিং অ্যাকুয়া সিস্টেম আরএএস পদ্ধতিতে মাছ চাষ করে সফল হয়েছেন আবদুস সামাদ নামের এক যুবক।রাজধানীর বনশ্রীতে ৬টি হাইজে ৬০ হাজার লিটার পানিতে করেছেন মাছের চাষ। যার খরচ প্রায় ১৬ লাখ টাকা। ১লাখ ২০ হাজার লিটার হাউজ তৈরির খরচ পড়বে ৩০ লাখ টাকা। খরচ তুলতে সময় লাগবে প্রায় দেড় বছর।

ফিল্টারিং করে পানি আবার হাউজে চলে আসায় পানির অপচয় কম। মাছের বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজন পিএইচ, অ্যামোনিয়া, অক্সিজেন তাও নিয়ন্ত্রন করা সম্ভব এই পদ্ধতিতে যা পুকুরে নিয়ন্ত্রন করা সম্ভব নয়।আরএএস পদ্ধতিতে অল্প পরিসরে পুকুরের সমান মাছ চাষের সুবিধা থাকায় শহরে কেউ কেউ শুরু করেছেন মাছ চাষ। তবে নিয়ম না মেনে মাছ চাষ করলে পরিবেশের ক্ষতির সম্ভবনা আছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।