| |

Ad

ধানক্ষেতে আগুন লাগার ঘটনাটি ভারতের: হানিফ

আপডেটঃ 8:36 pm | May 23, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক,

ধানের ন্যায্য দাম না পেয়ে ক্ষেতে কৃষকের আগুন লাগানোর যে ঘটনাটি গণমাধ্যমে এসেছে সেটি ভারতের বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ। বলেন, ‘ধানক্ষেতে আগুন, এটা বাংলাদেশের কোনো ঘটনা নয়। ভারতের পাঞ্জাবের একটি গমক্ষেতের আগুন দেয়ার ঘটনাকে ফেসবুকে পোস্ট করে ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে আয়োজিত এক সেমিনারে হানিফ একথা বলেন। ‘শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও নারীর অগ্রযাত্রায় সমৃদ্ধ বাংলাদেশ: শেখ হাসিনার অবদান’ শীর্ষক সেমিনারটির আয়োজন করা হয়।

উৎপাদিত ধানের কাঙ্ক্ষিত মূল্য না পেয়ে বিভিন্ন স্থানে পাকা ধানের ক্ষেতে আগুন দেওয়ার কয়েকটি ঘটনার খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। আর এসব ঘটনা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে সোমবার সাংবাদিকদের জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

হানিফ বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্র এখনো থামেনি। সুযোগ পেলেই তারা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হচ্ছে। বর্তমানে তারা ধান নিয়ে ষড়যন্ত্র করছে। জুটমিল শ্রমিকদেরও খুলনার একজন বিএনপি নেতা উস্কিয়ে দিয়েছেন।’

ধানক্ষেতে আগুন লাগার ঘটনা যারা ছড়িয়েছেন এবং পাটকল শ্রমিকদের যারা উস্কিয়ে দিয়েছেন তাদের গ্রেপ্তার করে অবিলম্বে শাস্তির আওতায় আনতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানান হানিফ।

‘সমাজে কিছু মানুষের অধঃপতন ঘটেছে’

সমাজে কিছু কিছু মানুষের অধঃপতন ঘটেছে মন্তব্য করে হানিফ বলেন, ‘যে তারা হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছে। একটি প্রকল্পের বালিশ কিনতে দুর্নীতি, আবার সেই বালিশ ওপরে তুলতে আবার দুর্নীতি। মানুষের মধ্যে নীতিনৈতিকতা এবং সততার অভাবে এসব ঘটনা ঘটছে। এসব লোকেরা ঘর থেকে শিক্ষা পায়নি। ঘরের শিক্ষা থাকলে তারা এ ধরনের দুর্নীতি করতে পারত না।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশে নারীরা অনেক দূর এগিয়ে গেছে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আমাদের দেশে প্রধানমন্ত্রী নারী, বিরোধীদলীয় নেতা নারী, স্পিকার নারী, উপনেতা নারী। এখন শুধু বাকি আছে রাষ্ট্রপতি পদটা। সেটাও দাবি করছেন আজকের নারীরা।’

‘গ্রামগঞ্জে নারীরা আজ নানা চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে সফল হচ্ছেন। স্থানীয় সরকারের নেতৃত্বে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নিচ্ছেন এবং নির্বাচনে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতার মাধ্যমে তারা নেতৃত্বে আসছেন। এসব শেখ হাসিনার অবদান।

সুলতানা সফির সভাপতিত্বে সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রখ্যাত অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন। অন্যদের মধ্যে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী, সাবেক নারী ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, আওয়ামী লীগের নেত্রী জাকিয়া হাসান, ফজিলাতুনন্নেসা ইন্দিরা, যুব মহিলা লীগের সভাপতি নাজমা আক্তার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।